আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

ফ্র্যাঞ্চাইজি লীগ

হ্যাটট্রিক হারের পর এবার হ্যাটট্রিক জয় কুমিল্লার

নাসির হোসেন একা শেষ অবধি লড়েও পারলেন না। ঢাকা ডমিনেটর্সকে ৩৩ রানে হারিয়ে টানা তৃতীয় জয়ের দেখা পেলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আসরে প্রথম তিন ম্যাচ টানা হারের পর টানা তিন ম্যাচে জয় তুলে নিলো ভিক্টোরিয়ান্স।

হ্যাটট্রিক হারের পর এবার হ্যাটট্রিক জয় কুমিল্লার

হ্যাটট্রিক হারের পর এবার হ্যাটট্রিক জয় কুমিল্লার। ছবিঃ সংগৃহীত

চট্টগ্রামে আজ (১৯ জানুয়ারি) দিনের প্রথম ম্যাচের টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান সংগ্রহ করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ১৮৫ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫১ রান সংগ্রহ করে ঢাকা ডমিনেটর্স।

১৮৫ রানের বড় টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় ঢাকা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে দলীয় ১১ রানে ডাক মেরে সাজঘরে ফিরেন ওপেনার সৌম্য সরকার। এই নিয়ে টানা দুই ম্যাচে ডাক মারলেন সৌম্য।

এরপর ক্রিজে আসেন রবিন দাস। এসে ৪ বল খেলে শূন্য রান করে আউট হন তিনিও। এই নিয়ে রবিনও সৌম্যর মতো টানা দুই ম্যাচে ডাক মারলেন। এরপর মোহাম্মদ মিথুনকে সঙ্গে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন ওপেনার আহমেহ শেহজাদ। তবে দলীয় ১৭ বলে ১৯ রান করে ৩৪ রানে রান আউট হয়ে ফেরন শেহজাদ।

এরপর ঢাকার হাল ধরেন মোহাম্মদ মিথুন ও অধিনায়ক নাসির হোসেন। দুজনে মিলে ৫১ রানের জুটি গড়েন। তবে দলীয় ৮৫ রানে ৩৪ বলে ৩৬ রান করে আউট হলে ক্রিজে আসেন আরিফুল হক। এরপর আরিফুলকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান নাসির।

তবে গতির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান তুলতে ব্যর্থ হলে শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫১ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় ঢাকা ডমিনেটর্স। আরিফুল ১৭ বলে ২৪ ও নাসির অপরাজিত থাকেন ৪৫ বলে ৬৬ রানে। কুমিল্লার পক্ষে হাসান আলি, তানভির ও মোসাদ্দেক নেন ১টি করে উইকেট।

আরও পড়ুনঃ অলরাউন্ডার হতে চান তাসকিন, প্রেরণায় মিরাজ

এর আগে প্রথমে ব্যাট করেতে নেমে শুরুটা একদমই ভালো হয়নি বর্ত্মান চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লার। স্কোরবোর্ডে কোন রান যোগ করার আগেই ইনিংসের দ্বিতীয় বলে গোল্ডেন ডাক মেরে আউট হন লিটন দাস।

লিটনের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। মোহাম্মদ রিজওয়ানকে সঙ্গে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন ইমরুল কায়েস। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৪৭ রান সংগ্রহ করেন এই দুই ব্যাটার।

তবে দলীয় ৪৭ রানে ৩৩ রান করে ইমরুল আউট হলে ক্রিজে আসে জনসন চার্লস। তাকে সঙ্গে নিয়ে রিজওয়ান রানের চাকা সচল রাখেলেও দলীয় ৮৭ রানে ১৯ বলে ২০ রান করা চার্লসের উইকেটও হারায় কুমিল্লা।

এরপর ক্রিজে আসেন খুশদিল। এসেই তোলেন ঝড়। আগ্রাসী মাত্র ব্যাটিংয়ে ১৮ বলেই নিজের অর্ধশতক পূরণ করেন এই আফগান। যা এই বিপিএলের সবচেয়ে দ্রুততম ফিফটি। অর্ধশতকের পরও ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে যান তিনি।

অন্যদিকে কিছুটা ধীরগতির ব্যাটিং করতে থাকেন রিজওয়ান। দলীয় ১৭১ রানে আউট হন খুশদিল। ২৪ বলে ৬৪ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলে সাজঘরে ফিরে যান তিনি।

শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান সংগ্রহ করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। রিজওয়ান ৪৭ বলে ৫৫ ও জাকের আলি ৩ বলে ৩ রানে অপরাজিত থাকেন।

ঢাকার পক্ষে তাসকিন, নাসির, ইমরান ও সৌম্য নেন ১টি করে উইকেট।

মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement

আরো দেখুন ফ্র্যাঞ্চাইজি লীগ