আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন

ফ্র্যাঞ্চাইজি লীগ

সিলেট স্ট্রাইকার্সের পাঁচে পাঁচ

বিপিএলে সিলেট স্ট্রাইকার্সের জয় রথ যেন থামছেই না। ঢাকা পর্বের তিন ম্যাচে তিনটিতেই জয় তুলে নিয়েছিল নবাগত দলটি। এবার চট্টগ্রাম পর্বেও জয়ের সেই ধারা অভ্যাহত রেখেছে তারা।

সিলেট স্ট্রাইকার্সের পাঁচে পাঁচ

সিলেট স্ট্রাইকার্সের পাঁচে পাঁচ। ছবিঃ সংগৃহীত

আজ (১৬ জানুয়ারি) জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ঢাকা ডমিনেটরসকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে অধিনায়ক মাশরাফির দল। এনিয়ে পাঁচ ম্যাচ খেলে পাঁচটিই জিতলো তারা।

টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের তৃতীয় বলেই ডাক মেরে ফেরেন ঢাকার সৌম্য সরকার। এরপর সেই চাপ আর কোনভাবেই সামলে উঠতে পারেনি ডমিনেটরস। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে দিলশান মুনাবিরা (১৭) ও রবিন দাসকে (০) ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সুযোগ তৈরি করেন ইমাদ ওয়াসিম।

দশম ওভারে ঢাকার দ্বিতীয় সেরা স্কোরার উসমান গনিকে (২৭) ফেরান নাজমুল ইসলাম। মোহাম্মদ মিঠুনকে (১৫) নিজের তৃতীয় শিকার বানান ইমাদ।

৭৪ রানে ৫ উইকেট ঢাকার স্কোর বোর্ড যখন ধুঁকছিল, তখন দলেকে টেনে তোলেন ক্যাপ্টেন নাসির হোসেন। আরিফুল হককে সাথে নিয়ে গড়েন ৫০ রানের জুটি। ইনিংস সেরা ৩৯ রান করে রান আউট হন নাসির। আর ২০ রান করেন আরিফুল। ইনিংস শেষে ঢাকার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ১২৮ রান।

১২৯ রানের মোটামুটি মামুলি জবাবে খেলতে নেমে শুরুতেই আত্মবিশ্বাসী থাকে সিলেট। মোহাম্মদ হ্যারিস ও নাজমুল হোসেন শান্তর ৫২ রানের জুটি ভালোভাবেই এগুচ্ছিলো। কিন্তু নবম ওভারে নাসির এসে এক ওভারেই ফেরান দুজনকে।

আরও পড়ুনঃ অস্ট্রেলিয়ার পর এবার শ্রীলঙ্কা বধ, বিশ্বকাপে উড়ছে ক্ষুদে বাঘিনীরা

পরের ওভারে হার্ডহিটার জাকির হাসানও ফেরেন মাত্র ১ রান করে। এরপর চাপ বাড়তে থাকে সিলেট শিবিরে। সেই চাপ আরও বাড়িয়ে দেয় ইমাদ ও মুশফিকুর রহিমের উইকেট।

শেষ তিন ওভারে সিলেটের প্রয়োজন ২৪ রান। শেষ দুই ওভারে তা দাঁড়ায় ২০ রানে। তবে সব চাপের অবসান ঘটিয়ে ৪ বল হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে যায় সিলেট।

৫ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে অবস্থান সিলেটের। অন্যদিকে ৪ ম্যাচে ১ জয় ও ৩ হারে ২ পয়েন্ট নিয়ে ঢাকা আছে পঞ্চম স্থানে।

মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement

আরো দেখুন ফ্র্যাঞ্চাইজি লীগ